দন্ডবিধি ১৮৬০ একটি মুল আইন, এই বিধিতে ৫১১ টি ধারা ও ২৩ টি অধ্যায় আছে। ইহা প্রথম প্রকাশিত হয় ১৮৬০ সালে ৬ষ অক্টোবর এবং কার্যকারি হয় ১লা জানুয়ারী ১৮৬২ সালে থেকে
[mcq id=”24″ ]

প্রশ্ন: ০১। PC এর পূর্ণ অর্থ কি ?
উত্তর: The Penal Code.
প্রশ্ন: ০২।: দন্ডবিধিতে কয়টি ধারা আছে?
উত্তরঃ ৫১১ টি ধারা আছে।
প্রশ্ন: ০৩। আতœহত্যার প্রচেষ্টার ধারা কত?
উত্তরঃ ৩০৯ টি।
প্রশ্ন: ০৪।: দন্ডবিধি কত সালে প্রণীত হয়?
উত্তরঃ ১৮৬০ সালে।
প্রশ্ন:০৫।: গৃহে অনধিকার প্রবেশের ধারা কত?
উত্তরঃ ৪৪২ ধারা।
প্রশ্ন: ০৬। কখন আতœরক্ষার অধিকার প্রয়োগ করে অপর কোন ব্যক্তির মৃত্যু ঘটানো যায় ?
উত্তর: দন্ডবিধি আইনের ১০০ ধারা মোতাবেক জীবন রক্ষার্থে ও ১০৩ মোতাবেক সম্পত্তি রক্ষার্থে আতœরক্ষার অধিকার প্রয়োগ করে অপর কোন ব্যক্তির মৃত্যু বা অন্যরুপ দৈহিক জখম ঘটাতে পারে।
প্রশ্ন: ০৭। কোন অপরাধ সংঘটিত হলে অপরাধীকে শাস্তি দেওয়া যায় না ?
উত্তর: আতœহত্যা ।
প্রশ্ন: ০৮। গৃহে অনধিকার প্রবেশের শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: দন্ডবিধি আইনের ৪৮৮ ধারায়।
প্রশ্ন:০৯। গৃহে অনধিকার প্রবেশের শাস্তি কি?
উত্তর: গৃহে অনধিকার প্রবেশের অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ১ বছর কারাদন্ডে বা এক হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা কিংবা উভয়বিধ দন্ডে দন্ডিত করা যাবে।
প্রশ্ন: ১০। Mensrea  কি ?
উত্তর: দোষযুক্ত মনই হচ্ছে মেনস্ রিয়া।
প্রশ্ন: ১১। শালীনতাহানির ধারা কত ?
উত্তর: ৩৫৪ ধারা ।
প্রশ্ন: ১২। আতœরক্ষার ধারা কত ?
উত্তর: দন্ডবিধির ৯৬ ধারা।
প্রশ্ন: ১৩। আতœরক্ষার অধিকার কি ?
উত্তর: মানব দেহের বিরুদ্ধে অপরাধের ক্ষেত্রে নিজের ও অপরের দেহ কিংবা চুরি, দস্যুতা, অনিষ্ট সাধন বা অপরাধজনক অনধিকার প্রবেশের বিরুদ্ধে নিজের বা অপরের স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি রক্ষার অধিকার হলো আতœরক্ষামূলক অধিকার
প্রশ্ন: ১৪। দন্ডবিধির কত ধারা পর্যন্ত আতœরক্ষার অধিকার বর্ণিত হয়েছে ?
উত্তর: আতœরক্ষার অধিকার সম্পর্কে বলা হয়েছে দন্ডবিধির ৯৬ থেকে ১০৬ ধারায়।
প্রশ্ন: ১৫। চুরির সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৭৮ ধারায় ।
প্রশ্ন: ১৬। চুরির শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৭৯ ধারায় ।
প্রশ্ন: ১৭। ৩৭৯ ধারার শাস্তি বলুন ?
উত্তর: তিন বৎসর পর্যন্ত যে কোন মেয়াদের সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদন্ড কিংবা অর্থদন্ড অথবা উভয়বিধ দন্ডে দন্ডিত হতে পারে।
প্রশ্ন: ১৮। চুরির উপাদান কি কি ?
উত্তর: চুরির উপাদানগুলো হচ্ছে ঃ (১) বস্তুটি অবশ্যই অস্থাবর সম্পত্তি হতে হবে। (২) মালিকের সম্মতি ব্যতিত তা অন্য কারোর নিকট হস্তান্তর করতে হবে। (৩) উক্ত হাস্তন্তর অসাধুভাবে করতে হবে ।
প্রশ্ন: ১৯। বাসগৃহে চুরির ধারা কত ?
উত্তর: ৩৮০।
প্রশ্ন: ২০। দস্যুতার সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৯০।
প্রশ্ন: ২১। দস্যুতার শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৯২ ধারায়।
প্রশ্ন: ২২। দস্যুতার শাস্তি কত ?
উত্তর: ১০ বৎসর পর্যন্ত যে কোন মেয়াদের সশ্রম কারাদন্ড এবং অর্থ কিংবা উভয়বিধ দন্ডে দন্ডিত করা যায়।
প্রশ্ন: ২৩। রাজপথে দস্যুতার শাস্তি কত ?
উত্তর: ৩৯৩ ধারামতে যদি সুর্যোদয় হতে সুর্যস্তের মধ্যবর্তী সময়ের মধ্যে রাজপথে দস্যুতা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে তাহলে কারাদন্ডের মেয়াদ ১৪ বৎসর পর্যন্ত হতে পারে।
প্রশ্ন: ২৪। ডাকাতির ধারা কত ?
উত্তর: ৩৯১ ধারা ।
প্রশ্ন: ২৫। ডাকাতির শাস্তি কত ?
উত্তর: ১০ বৎসর পর্যন্ত সশ্রম কারাদন্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং তদুপরি অর্থদন্ড।
প্রশ্ন: ২৬। ডাকাতির শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: দন্ডবিধির ৩৯৫ ধারা।
প্রশ্ন: ২৭। বেআইনী বাধাদানের সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৩৯ ধারা।
প্রশ্ন: ২৮। বেআইনী বাধাদানের শাস্তি ধারা কত ?
উত্তর: ৩৪১ ধারা।
প্রশ্ন: ২৯। বেআইনী আটকের ধারা কত ?
উত্তর: ৩৪০ ধারা ।
প্রশ্ন: ৩০। বেআইনী আটকের শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৪২ ধারা ।
প্রশ্ন: ৩১। ষড় যন্ত্র এর সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর: ১২০(ক) ধারায় ।
প্রশ্ন: ৩২। অপরাধের সহায়তা এর সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর। ১০৭ ধারায়।
প্রশ্ন: ৩৩। খনসহ ডাকাতির ধারা কত ?
উত্তর: ৩৯৬ ধারা ।
প্রশ্ন: ৩৪। ডাকাতদের দলে থাকার শাস্তি কোন ধারায় ?
উত্তর: ৪০০ ধারায়।প্রশ্ন: ৫৪। গুরুতর আগাতের শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩২৫ ধারা ।
প্রশ্ন: ৫৫। ৩৮১ ধারা কি ?
উত্তর। চাকার বা কোরানী কর্তৃক চুরি যার শাস্তি ৭ বৎসর কারাদন্ড, জরিমানা বা উভয় বিধ দন্ড।
প্রশ্ন: ৫৬। কমন ইনটেনশন এবং কমন অবজেক্ট- এর মধ্যে পার্থক্য কি ?
উত্তর: কমন ইনটেনশন হচেছ যৌথ দায়িত্বে একটি অপরাধ এবং কমন অবজেক্ট হচ্ছে পরোক্ষ দায়িত্বের অপরাধ। কমন ইনটেনশনে পূর্ব পরিকল্পনা প্রয়োজন হয় না। কমন ইনটেনশন দুই বা ততোধিক ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কমন অবজেক্ট পাঁচ বা ততোধিক ব্যক্তির বেআইনী সবাবেশের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।
প্রশ্ন: ৫৭। কমন ইনটেনশনের ধারা কত ?
উত্তর: ৩৪ ধারা ।
প্রশ্ন: ৫৮। কমন অবজেক্টের ধারা কত ?
উত্তর: ১৪৯ ধারা ।
প্রশ্ন: ৫৯। ৩৮২ ধারা কি ?
উত্তর: চুরি করার উদ্দেশ্যে মৃত্যু ঘটানো, আঘাত করা বা আটক করা যার শাস্তি ১০ বৎসর কারাদন্ড, অর্খদন্ড বা উভয়বিধ দন্ড।
প্রশ্ন: ৬০। ছিনতাই এর ধারা কত ?
উত্তর: ৩৮৩ ধারা ।
প্রশ্ন: ৬১। ছিনতাই এর শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৮৪ ধারা ।
প্রশ্ন: ৬২। ছিনতাই এর শাস্তি কি ?
উত্তর: ৩ বছর পর্যন্ত কারাদন্ড বা অর্থদন্ড বা উভয়বিধ দন্ড।
প্রশ্ন: ৬৩। চুরি ও ছিনতাই- এর মধ্যে পার্থক্য কি ?
উত্তর। মালিকের সম্মতি ব্যতীত কোন জিনিস স্থানান্তর করা হচ্ছে চুরি । মালিককে ভয় দেখিয়েতার কাছ থেকে সম্পত্তি গ্রহণ করা হচ্ছে ছিনতাই, চুরিতে কেবল অস্থাবর সম্পত্তি হতে হবে ছিনতাই এ স্থবর ও অস্থাবর সম্পত্তি হতে পারে ।
প্রশ্ন: ৬৪। সূর্যস্ত ও সূযোদয়ের মধ্যবর্তী সময়ে ডাকাতির শাস্তি কি ?
উত্তর: ৩৯২ ধারা।
প্রশ্ন: ৬৫। সূর্যস্ত ও সূর্যোদয়ের মধ্যবর্তী সময়ে ডাকাতির সাস্তি কি ?
উত্তর: ১৪ বৎসর পর্যন্ত সশ্রম কারাদন্ড।
প্রশ্ন: ৬৬। খুনসহ ডাকাতির শাস্তি কি ?
উত্তর: মৃত্যুদন্ড যাবজ্জীবন কারাদন্ড বা ১০ বৎসর কারাদন্ড।
প্রশ্ন: ৬৭। মারাতœক অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতির শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৯৮ ধারায় ।
প্রশ্ন: ৬৮। মারাতœক অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতির শাস্তি কি ?
উত্তর। কারাদন্ড যা ৭ বৎসরের কম নহে।
প্রশ্ন:৬৯। আঘাতের ভয় দেখিয়ে ডাকাতির শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৯৭ ধারায়।
প্রশ্ন: ৭০। আঘাতের ভয় দেখিয়ে ডাকাতির শাস্তি কি ?
উত্তর: বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড যা ৭ বৎসরের কম নহে।
প্রশ্ন: ৭১। ৩৯৯ ধারা কি ?
উত্তর: ডাকাতির প্রস্তুতি, শাস্তি ১০ বৎসর কারাদন্ড বা অর্থদন্ড।
প্রশ্ন: ৭২। খুনের ধারা কত ?
উত্তর: ৩০০ ধারা।
প্রশ্ন: ৭৩। খুনের শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর: ৩০২ ধারা।
প্রশ্ন: ৭৪। খুনের শাস্তি কি ?
উত্তর: মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন কারাদন্ড এরং অর্থদন্ড।
প্রশ্ন: ৭৫। অপরাধজনক নরহত্যার শাস্তি কি ?
উত্তর: ৩০৪ ধারায়।
প্রশ্ন। ৭৬। অপরাধজনক নরহত্যার শাস্তি কি?
উত্তর: যাবজ্জীবন কারাদন্ড বা ১০ বৎসর পর্যন্ত সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং জরিমানা ।
প্রশ্ন: ৭৭। অপরাধমূলক সম্পত্তি আতœসাতের সংজ্ঞা ও শাস্তি কত ধারায় ?
উত্তর:৪০৩ ধারায়।
প্রশ্ন: ৭৮। অপরাধমূলক সম্পত্তি আতœসাত কি ?
উত্তর: অসাধুভাবে কোন বাস্থাবর সম্পত্তি আতœসাত কিংবা নিজস্ব ব্যবহারে পরিণত করাকে অপরাধমূলক সম্পত্তি আতœসাত বলে।
প্রশ্ন: ৭৯। অপরাধমূলক সম্পত্তি আতœসাতের শাস্তি কি?
উত্তর: দুই বৎসর পর্যন্ত কারাদন্ড বা অর্থদন্ড বা উভয়বিধ দন্ড।
প্রশ্ন: ৮০। অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গ কি?
উত্তর: যদি কোন ব্যক্তি কোন সম্পত্তির দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে উক্ত সম্পত্তি আতœসাত করে বা নিজস্ব ব্যবহারে পরিণত করে বা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কোন আইনানুগ চুক্তিভঙ্গ করে তখন তাকে অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গ বলা হয়।
প্রশ্ন: ৮১। অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গের শাস্তি কত ধারায় এবং কি?
উত্তর: ৪০৬ ধারা মোতাবেক ৩ বৎসর পর্যন্ত কারাদন্ড বা অর্থদন্ড বা উভয়বিধ দন্ড।
প্রশ্ন: ৮২। ৩০৩ ধারা কি?
উত্তর: যাবজ্জীবন কারাদন্ডে দনিডত ব্যক্তি।
প্রশ্ন: ৮৩। লোক অপহরণের ( কিডন্যাপ ) সংজ্ঞা কত ধারায় ?
উত্তর: ৩৬৯ ধারায় ।
প্রশ্ন: ৮৪। বাংলাদেশ হতে লোক অপহরণের ধারা কত ?
উত্তর: ৩৬০ ধারা।
প্রশ্ন: ৮৫। আইনানুগ অভিভাবক হতে লোক অপহরণের ধারা কত ?
উত্তর: ৩৬১ ধারা।
প্রশ্ন: ৮৬। জালিয়াতির ধারা কত ?
উত্তর: ৪৬৩ ধারা।
প্রশ্ন: ৮৭। জালিয়াতির উপাদানগুলো কি কি?
উত্তর: কোন ভূয়া দলিল তৈরী করা যার উদ্দেশ্য হচ্ছে ঃ
(১) জনসাধরণের বা কোন ব্যক্তির ক্ষতি সাধন করা (২) কোন ব্যক্তিকে তার সম্পত্তি পরিত্যাগ করানো (৩) প্রতারণা করা বা করা যেতে পারে।
প্রশ্ন: ৮৮। সরল বিশ্বাস কত ধারায় ?
উত্তর: ৫২ ধারায়।
প্রশ্ন: ৮৯। গণ উৎপাত কত ধারায় ?
উত্তর: ২৬৮ ধারায়।
প্রশ্ন: ৯০। প্রতারণার এর ধারা কত ?
উত্তর: ৪১৫ ধারা।
প্রশ্ন: ৯১। প্রতারণার উপাদানগুলো কি কি ?
উত্তর: (ক) অপরাধী কোন ব্যক্তিকে ফাঁকি দিবে। (খ) প্রতারণামূলকভাবে বা অসাধুভাবে ফাঁকি দিবে । (গ) ফাঁকি দিয়ে ঐ ব্যক্তিকে কোন সম্পত্তি প্রদান করতে প্ররোচিত করবে। (ঘ) বাদীর দেহ, মন, সুনাম ইত্যাদির ক্ষতীসাধন করবে ।
প্রশ্ন: ৯২। লোক অপহরণ শাস্তি কি ?
উত্তর: (ক) ৩৬৩ ধারা মোতাবেক লোক অপহরণের শাস্তি ৭ বৎসর পর্যন্ত কারাদন্ড, অর্থদন্ড বা উভয়বিধ দন্ড